শিরোনাম

  এতগুলো লোক নাকি উধাও হয়েছে, তারা কারা? - র‍্যাব ডিজি       সাকিকে 'রাজনৈতিক এতিম' সম্বোধন করে এ কি বললেন গণঅধিকার পরিষদ নেতা!       কৃষক ভরসায় 'ব্রি-ধান ৭৫'       ‘হাসিনা: এ ডটারস টেল’ দেখে আপ্লুত ব্রুনেইয়ের চলচ্চিত্র নির্মাতা জানাইদি       বঙ্গবন্ধুর খুনি-যুদ্ধাপরাধীদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে : শেখ হাসিনা       স্বল্পোন্নত দেশগুলোর শীর্ষে বাংলাদেশের অবস্থান       পুলিশের সর্বোচ্চ পদ থেকে বিদায় নিলেন বেনজীর আহমেদ       ইউরোপে বাংলাদেশী পোশাকের আমদানিতে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন       তুখোড় জয় দিয়ে এশিয়া কাপের আসর শুরু করল বাংলাদেশ       সরকারিভাবে ৩০০ স্কুলে খাওয়ানো হবে গরুর দুধ    

কক্সবাজারেই এশিয়ার বৃহৎ ‘আইকনিক রেলস্টেশন’ মূল ভবনের নির্মাণকাজ শেষ

প্রকাশিত: আগস্ট ০৯, ২০২২, ০৫:০৩ বিকাল
আপডেট: আগস্ট ০৯, ২০২২, ০৫:০৩ বিকাল
আমাদেরকে ফলো করুন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

কক্সবাজারে দেশের প্রথম আইকনিক রেলওয়ে স্টেশনের মূল ভবনের নির্মাণকাজ শেষ। এবার ছয়তলা এ ভবন ঝিনুকের আদলে সাজবে ছাদের ওপর স্টিলের ক্যানোফিতে। এক হাজার ১০০ টনের এ স্টিল ক্যানোফি চীন থেকে চলতি মাসে এসে পৌঁছাবে কক্সবাজারে। আর সেপ্টেম্বরে শুরু হয়ে ৩ মাসের মধ্যে শেষ হবে এর কাজ। এর মাধ্যমে ঝিনুকের আদলে রূপ পাবে দেশের প্রথম আইকনিক রেলস্টেশন।

দৃষ্টিনন্দন এ আইকনিক রেলস্টেশনের সামনে খোলা মাঠে বিশাল আকৃতির ঝিনুকের ফোয়ারা। ঝিকঝিক শব্দ করে ট্রেন আসার পর যাত্রীরা ঝিনুকের ফোয়ারা দিয়ে প্রবেশ করবেন স্টেশনে। থাকছে গাড়ি পার্কিংয়ের তিনটি বড় জায়গা। স্টেশন ভবনের নিচতলায় থাকবে টিকিট কাউন্টার, স্বাগত জানানোর কক্ষ, লকার, মসজিদ, শিশুদের বিনোদনের জায়গা ও প্যাসেঞ্জার লাউঞ্জ। তারপর চলন্ত সিঁড়ির মাধ্যমে সেতু হয়ে উঠবেন ট্রেনে।

দ্বিতীয় তলায় থাকবে শপিংমল, শিশু যত্নকেন্দ্র ও রেস্তোরাঁ। আর তৃতীয় তলায় ৩৯ কক্ষের তারকামানের হোটেল। চতুর্থ তলায় রেস্তোরাঁ, কনফারেন্স হল ও কর্মকর্তাদের কার্যালয়। থাকছে ৮০ ফুট দীর্ঘ সেতু। এর সঙ্গে যুক্ত থাকবে আলাদা তিনটি চলন্ত সিঁড়ি। বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের জন্য রাখা হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। একই সঙ্গে রয়েছে তিনটি প্ল্যাটফর্মও।

দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে ভবনের চারিদিকে গ্লাস, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র, ফায়ার ফাইটিং, স্যানিটারি আর বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি স্থাপনের কাজ। দোহাজারি-কক্সবাজার রেলওয়ে প্রজেক্টের ইঞ্জিনিয়ার তাইজুল ইসলাম বলেন, রাতদিন কাজ করে আমরা প্রজেক্টটি শেষের পথে নিয়ে আসছি। ভবনের কাজ শেষ। এখন সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ চলছে।

কনস্ট্রাকশন ম্যানেজার মো. আবদুল জব্বার বলেন, পর্যটকদের কথা মাথায় রেখেই এ আইকনিক রেলস্টেশনের ডিজাইন করা। যদিও বাংলাদেশে এ ডিজাইন অনেক কঠিন। সব দিক দিয়ে এটি একটু আলাদা।

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত হতে ৩ কিলোমিটার দূরে দেশের একমাত্র আইকনিক এ রেলস্টেশনটি নির্মিত হচ্ছে ২৯ একর জমির ওপর। এ জন্য ব্যয় হচ্ছে ২১৫ কোটি টাকা।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, নিউজ টিপিবি এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়