শিরোনাম

  এতগুলো লোক নাকি উধাও হয়েছে, তারা কারা? - র‍্যাব ডিজি       সাকিকে 'রাজনৈতিক এতিম' সম্বোধন করে এ কি বললেন গণঅধিকার পরিষদ নেতা!       কৃষক ভরসায় 'ব্রি-ধান ৭৫'       ‘হাসিনা: এ ডটারস টেল’ দেখে আপ্লুত ব্রুনেইয়ের চলচ্চিত্র নির্মাতা জানাইদি       বঙ্গবন্ধুর খুনি-যুদ্ধাপরাধীদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে : শেখ হাসিনা       স্বল্পোন্নত দেশগুলোর শীর্ষে বাংলাদেশের অবস্থান       পুলিশের সর্বোচ্চ পদ থেকে বিদায় নিলেন বেনজীর আহমেদ       ইউরোপে বাংলাদেশী পোশাকের আমদানিতে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন       তুখোড় জয় দিয়ে এশিয়া কাপের আসর শুরু করল বাংলাদেশ       সরকারিভাবে ৩০০ স্কুলে খাওয়ানো হবে গরুর দুধ    

কাউনিয়ায় টিসিবির কার্ড দেওয়ার নামে টাকা আদায় একজন গ্রেফতার

প্রকাশিত: এপ্রিল ০২, ২০২২, ০৮:৫৮ রাত
আপডেট: এপ্রিল ০৯, ২০২২, ১০:৪৪ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের কাউনিয়ায় টিসিবির ফ্যামিলি কার্ড দেওয়ার নামে উপকারভোগীদের কাছে প্রতারণা করে টাকা আদায়ের অভিযোগে নিরব হোসেন নিরাশাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত শুক্রবার রাতে উপজেলার হারাগাছ ইউনিয়নের ধুমগড়া গ্রামে স্থানীয় লোকজন তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। নিরব হোসেন নিরাশা উপজেলার হারাগাছ ইউনিয়নের সোনাতন দারগার চাতাল গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় হারাগাছ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাজু আহমেদ বাদি হয়ে হারাগাছ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। আজ মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে রংপুর আদালতে সোপর্দ করেছে পুলিশ।


মামলার বরাত দিয়ে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের হারাগাছ থানা ইন্সপেক্টর তদন্ত এবিএম ফিরোজ ওয়াহিদ জানান, নিরব হোসেন নিরাশা হারাগাছ ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য আদুরী বেগমের ছোট ভাই। নিরাশা নিজেকে চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি পরিচয় দিয়ে গতমাসে ধুমগড়া গ্রামে বেশকয়েকজন অসহায় দরিদ্র পরিবারের কাছে টিসিবির ফ্যামিলি কার্ড দেয়ার কথা বলে প্রতিজনের কাছ থেকে ১১শ’ করে টাকা আদায় করে। শুক্রবার সন্ধ্যায় সে  ধুমগাড়া গ্রাম গিয়ে চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি পরিচয় দিয়ে অসহায় দরিদ্র মানুষদের কাছে টিসিবির ফ্যামিলি কার্ড দেয়ার নামে আবারও টাকা দাবি করে। স্থানীয় লোকজন প্রতারণার বিষয়টি টের পেয়ে তাকে আটক করে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে খবর দেয়। পরে পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।


হারাগাছ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাজু আহমেদ বলেন, প্রতারক নিরাশা তার ইউনিয়নের বাসিন্দা। কিন্তু সে চেয়ারম্যানের কোনো প্রতিনিধি নয়। নিরাশার প্রতারণার সাথে তার বোন সংরক্ষিত আসনের মহিলা সদস্য ও জড়িত থাকতে পারে বলে ধারণা করা যাচ্ছে। কারণ বিগত দিনে যাদের কাছ থেকে টাকা নিয়েছিল তাদের টাকা ফেরত দেয়ার জন্য সংরক্ষিত মহিলা সদস্যকে বলেছিলাম। কিন্তু তিনি আমার কথা মানেননি।


হারাগাছ থানা ইন্সপেক্টর তদন্ত এবিএম ফিরোজ ওয়াহিদ বলেন, প্রাথমিক তদন্তে টিসিবির কার্ড দেয়ার নামে প্রতারণার বিষয়টির সত্যতা পাওয়া গেছে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, নিউজ টিপিবি এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়