শিরোনাম

  এতগুলো লোক নাকি উধাও হয়েছে, তারা কারা? - র‍্যাব ডিজি       সাকিকে 'রাজনৈতিক এতিম' সম্বোধন করে এ কি বললেন গণঅধিকার পরিষদ নেতা!       কৃষক ভরসায় 'ব্রি-ধান ৭৫'       ‘হাসিনা: এ ডটারস টেল’ দেখে আপ্লুত ব্রুনেইয়ের চলচ্চিত্র নির্মাতা জানাইদি       বঙ্গবন্ধুর খুনি-যুদ্ধাপরাধীদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে : শেখ হাসিনা       স্বল্পোন্নত দেশগুলোর শীর্ষে বাংলাদেশের অবস্থান       পুলিশের সর্বোচ্চ পদ থেকে বিদায় নিলেন বেনজীর আহমেদ       ইউরোপে বাংলাদেশী পোশাকের আমদানিতে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন       তুখোড় জয় দিয়ে এশিয়া কাপের আসর শুরু করল বাংলাদেশ       সরকারিভাবে ৩০০ স্কুলে খাওয়ানো হবে গরুর দুধ    

পরিচয় গোপন রেখে হারানো ২ লাখ টাকা ফিরিয়ে দিলেন দিনমজুর

প্রকাশিত: আগস্ট ১০, ২০২২, ০১:৫৪ দুপুর
আপডেট: আগস্ট ১০, ২০২২, ০১:৫৪ দুপুর
আমাদেরকে ফলো করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

তিন দিন আগে প্রায় ২ লাখ টাকা হারিয়ে আবারও ফেরত পেলেন বরিশাল নগরীর এক মিল মালিক।

মঙ্গলবার বিকালে নগরীর ২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর একেএম মর্তুজার কাছ থেকে ওই টাকা গ্রহণ করেন আটা-ময়দার মিল মালিক শংকর দাস।

এ সময় কাউন্সিলর জানান, ওই টাকা রাস্তায় কুড়িয়ে পেয়ে তার অফিসে রেখে গেছেন এক দিনমজুর। তবে সেই দিনমজুরের ইচ্ছায় তার পরিচয় গোপন রাখেন তিনি।

নগরীর বিসিক এলাকার সুগন্ধা ফ্লাওয়ার মিলের মালিক শংকর কুমার সাহা জানান, গত ৬ আগস্ট বিসিক এলাকার ফ্রেশ বেকারি থেকে তাকে ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা দেয়া হয়। ওই টাকা একটি শপিং ব্যাগে নিয়ে মোটরসাইকেলে ঝুলিয়ে নগরীর হাটখোলা কার্যালয়ের উদ্দেশে রওনা হন তিনি।

শংকর সাহা বলেন, ‘বিসিক এলাকার এবড়ো-থেবড়ো রাস্তায় শপিং ব্যাগ ছিঁড়ে পড়ে যায়। হাটখোলা গিয়ে দেখি- টাকাভর্তি ব্যাগ নেই।’

তাৎক্ষণিকভাবে টাকার সন্ধান শুরু করেন শংকর। পথে যে কয়টি দোকানে সিসি ক্যামেরা আছে সবগুলোর ফুটেজ দেখেও টাকার সন্ধান পাননি তিনি। গত ৮ আগস্ট সারাদিন টাকার সন্ধানে মাইকিংও করা হয়। টাকা ফিরিয়ে দিলে পুরস্কার দেয়ারও ঘোষণা দেয়া হয়।

এ অবস্থায় টাকা ফিরে পাওয়ার আশা ছেড়েই দিয়েছিলেন শংকর। কিন্তু মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে তাকে নগরীর ২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর একেএম মতুর্জা আবেদীন ফোন করেন এবং তার হারানো টাকার পরিমাণ জানতে চান। পরে নিশ্চিত হয়ে বিকালে তার কার্যালয়ে গিয়ে টাকা আনতে বলেন।

শংকর সাহা বলেন, ‘রাস্তায় টাকা কুড়িয়ে পাওয়া ব্যক্তি গরীব লোক। তার পরিচয় জানাতে নিষেধ করেছেন। তাই কাউন্সিলর তার পরিচয় জানাননি। এমনকি তাকে আমি চোখেও দেখিনি।’

এ বিষয়ে কাউন্সিলর মর্তুজা আবেদীন বলেন, ‘টাকা কুড়িয়ে পাওয়া ব্যক্তি একজন শ্রমিক। এক কথায় দিনমজুর। টাকা কুড়িয়ে পেয়ে তিনি মালিকের সন্ধান করতে থাকেন। পরে মাইকিং শুনে স্থানীয় কাউন্সিলর হিসেবে আমার কাছে ওই টাকা জমা দিয়ে যান।’

লোকটি কাউনিয়া এলাকার বাসিন্দা জানিয়ে কাউন্সিলর বলেন, ‘এখনও সমাজে ভালো ও নির্লোভ মানুষ আছে! একজন দিনমজুরের যে ১ লাখ ৯০ হাজার টাকার প্রতি লোভ নেই- তা জানুক মানুষ।’

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, নিউজ টিপিবি এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়