জৈব সার উৎপাদন হচ্ছে মানব বর্জ্যে

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২, ০৩:২৭ দুপুর
আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২, ০৩:২৮ দুপুর
আমাদেরকে ফলো করুন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

মানব বর্জ্য ও গৃহস্থালি বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভা। সৈয়দপুর পৌরসভার ব্যবস্থাপনায় ‘ওয়াটার এইড’ ও ‘এসকেএস’ নামে দুটি বেসরকারি সেবা প্রতিষ্ঠান ‘ফেইকাল স্ল্যাজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট’ তৈরি করে মানব বর্জ্য ও গৃহস্থালি বর্জ্য দিয়ে কো-কম্পোস্ট জৈব সার উৎপাদন করছে।

শিল্পে সমৃদ্ধ ঘন বসতিপূর্ণ প্রথম শ্রেণির সৈয়দপুর পৌরসভা এমনিতেই অপরিচ্ছন্ন। অপরিকল্পিত ড্রেনেজ ও সেনিট্রেশন ব্যবস্থা, যত্রতত্র গৃহস্থালি বর্জ্য জমে থাকায় এমনিতেই দুর্গন্ধময় শহর। সমন্বিত স্যানিটেশন ব্যবস্থা ও পরিচ্ছন্ন শহর গড়ে তোলার পরিকল্পনা নিয়ে সৈয়দপুর পৌরসভা দুটি বেসরকারি সেবা প্রতিষ্ঠানের সহায়তা নিয়ে ২০১৬ সালে শুরু করেন মানব বর্জ্য ও গৃহস্থালি বর্জ্য পরিশোধনাগারের কাজ।

বর্তমানে এই স্লাজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট থেকে তৈরি হচ্ছে কো-কম্পোজ জৈব সার। ১৭০ শতক জমির ওপর গড়ে ওঠা ফেইকাল স্ল্যাজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে মানব বর্জ্য ও গৃহস্থালি বর্জ্যকে শোধনাগারে পুরো প্রক্রিয়াটিকে ৫টি ধাপের মাধ্যমে সম্পূর্ণ করে কো-কম্পোজ জৈব সারে রূপান্তরিত করা হয়।

বর্তমানে পৌর এলাকার ২৮ হাজার ৯৪২টি পরিবারের মধ্যে ৩ হাজার ৬৬০টি পরিবার ও ৩টি হাট-বাজারের মানব বর্জ্য ও গৃহস্থালি বর্জ্যকে ভ্যাকুট্যাগ ও ভ্যানে সংগ্রহ এ শোধনাগারে ব্যবহার করা হচ্ছে। শোধনাগারের উৎপাদিত কো-কম্পোজ জৈব সার কৃষকদের মাঝে বিক্রি করা শুরু হয়েছে। জমিতে সার ব্যবহার করে কৃষকরা লাভবান হচ্ছেন বলে জানিয়েছেন।

ওয়াটার এইডের প্রোগ্রাম অফিসার সুমন কুমার সাহা বলেন, সৈয়দপুর পৌরবাসীর কঠিন বর্জ্য ও মল ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে একটি সমন্বিত উন্নত স্যানিটেশন ব্যবস্থার শহর গড়ে তোলার জন্য আমরা কাজ করছি। সেই সঙ্গে সৈয়দপুর পৌরসভাকে কারিগরি সহায়তা দিচ্ছি।

সৈয়দপুর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মমতা সাহা বলেন, এই কো-কম্পোজ জৈব সার আমরা পৌর এলাকাসহ ৫টি ইউনিয়নের পুষ্টি বাগানে ব্যবহার করে উপকার পেয়েছি।

এদিকে সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র রাফিকা আক্তার জাহান বেবি বলেন, মানব ও গৃহস্থালি বর্জ্যকে পণ্যে পরিণত করাসহ শহরকে পরিচ্ছন্ন রাখার কাজে আমরা নিয়োজিত আছি।

১ লাখ ৩২ হাজার জনসংখ্যার সৈয়দপুর পৌরসভায় পিট ল্যাট্রিন-৯৫৪৫ ও সেপটিক ট্যাংক-৮৩৫৭ টি। প্রতিদিন বসতবাড়ি থেকে বর্জ্য পাওয়া যায় ৩৭.৩৫ মেট্রিক টন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, নিউজ টিপিবি এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়